Header Ads

Header ADS

A novel on a Bangla Sexual Freak Girl – সাগরিকা

মানুষের জীবন পরিবরতনশীল। আমরা শৈশব থেকে বেড়ে উঠি একটু একটু করে। কিছু স্মৃতি আকড়ে আমাদের এগিয়ে চলতে হয়। এমনি একটি ঘটনা বলার চেষ্টা করছি।
যৌনতা কে বুঝে নিতে আমার কেটে গিয়ে ছিল ১৭ বছর। আমাদের ছোটো পরিবারের টানাটানি-এর মধ্যেও আমাদের বেড়ে উঠা ছিল স্বাভাবিক। এমন সময় পরিচয় হল আমাদের পাশের বাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে। নাম তার সাগরিকা।
চঞ্চল স্বাভাবের জন্য সবাই তাকে ভিষন ভালবাসে। তার অবাধ স্বাধীনতা। আর ঘুরে ঘুরে বেড়াতো কখনো আমাদের বাড়ি বা আশে পাশে । বয়সে রঙ লেগেছে। সেটা তার মনে ছিল না।
নারী শরীরের আকর্ষন সবে বোঝা সুরু করেছি। তাই সাগরিকা-এর মতন ১৪ বছরের মেয়ের শরীরের যৌন অঙ্গ গুলো বেশি মাদকতা ছড়িয়ে দেয়। কালিদাস কবি কে মনে পরত যেমন উনি লিখতেন নিম্ন নাভি, পিনাগ্র স্তন, ঠিক সেরকম শকুন্তলা এর মত। হিমালায়ের মতন খাড়া গোলাপি বৃন্ত। পাপড়ির মতন ঠোঁটের কোয়া। সাগরিকা দেখতেও ছিল ভিষন সুন্দর। তাহলে নিশ্চয়ি বুঝতে পারছেন যে মেয়ে এত সুন্দর তার মা-ও ভিষন সুন্দরী। তার মায়ের বর্ণনা দেবার সামর্থ তখনও আমার হয় নি। শুধু ভদ্রমহিলার দিকে তাকিয়ে থাকতাম হাঁ করে।
এই ভাবে কেটে গেলে বেশ কিছু মাস। যে ঘটনা থেকে আমার যৌন জীবনের সুত্রপাত সেই ঘটনা আমি এবার আপনাদের সোনাচ্ছি।
গ্রিষ্মের এক দুপুর। আমার পড়ার ঘরের জানলা দিয়ে সাগরিকাদের বাড়ির বাথরুম দেখা যেত। যেহেতু আমি আগেই বলেছি যে আমি ভিষন নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসেছি তাই সেখানে বাথরুম আর স্নান ঘরে বিশেষ দরজা ছিল না। আমি চেষ্টা করতাম ওদের স্নান করা দেখতে বা ওকে, ওর মা কে দেখতে। যৌনতা মনে থাকলেও ভীষন ভয় করত। লোকলজ্জ্যা-এর ভয়ে আমি বেশী সাহস দেখাতাম না।
সাগর ওর মাশীর বাড়ি যাবে বলে জামা কাপড় বদলাতে এল। আওয়াজ পেতেই আমি উঁকি মেরে সাগর কে দেখা সুরু করলাম। বেশী দূর নয় বলেই ভালো ভাবে দেখা যেতো। মনে ভীষন কৌতুহল আর সবে লিঙ্গে মইথুন সুরু করেছি। এই অবস্থায় সাগর নিজের টেপ খুলে রাখল। ন্যস্পাতির মত ওর বুক, আর বুকের দুই স্তন-এ গোলাপি বৃন্ত আর ডোরাকাটা তার চারপাশ। আমার উত্থিত লিঙ্গ আমায় জানান দিল। ভীষন কাম আবেশে আমার নিথর ছোখে তাকিয়ে থাকতে লাগ-লাম ঘটনা প্রবাহের দিকে। যত ছোটো ওকে ভেবে ছিলাম ওর বুকের দিকে তাকিয়ে তা মনে হল না। ঝপাস করে এক বালতি জল ঢেলে দিল গায়ের উপর। পেটের নাভি থেকে বাকি ফ্রক টা ঝুলছে। চেহারায় চরম কাম উত্তেজনা। যেমন রূপশী তেমন বেগবতি। জলে ভিজে যাওায়ায় ফ্রক টা ভারী হয়ে নিছে পড়ে গেল কিছু সময় পর। আর আমি চোখে সরষে ফুল দেখতে লাগ-লাম।যেহেতু এর আগে আমি কখনো কোনো নগ্ন মেয়ে কে এইই ভাবে দেখিনি তাই আমার লিঙ্গ থেকে কাম রস বের হতে থাকল। হাল্কা হাল্কা মসৃন লোমে ঢাকা তার যৌনাঙ্গ। আর তার নরম হাতে জল দিয়ে ধুয়ে দিচ্ছিল। সাগরের চুল ছিল রেশ্মি, আর ঘাড় পর্যন্ত নেবে পিঠ অব্দি বেয়ে এসেছে। টুপ টুপ করে জল বেয়ে পড়ছে শরীর দিয়ে। আমার মনে হচ্ছিলো যদি এক বার পেতাম একটু ছুঁতে। গুন গুন করে গান গাইছিল” কারে তুমি ভাসালে আঁখি জলে”—
নিজের মনে আপন মনে ঘুরে যেতেই তার শরীরের পিছনের দৃশ্যটা দেখতে পেলাম। আমার সারা শরীর ভয় আর উত্তেজনায় কাঁপছে। বেশী সাহস করে সামনেও যেতে পারছি না। যদি সাগর দেখে ফেলে। বাধ্য হয়ে মৈথুন সুরু করলাম। মনে সাগর কে দেখে কামনা করি নি কখনও তাই একটু অপ্রস্তুত লাগছিল। অজ়ানা সিহরনে বিভর হয়ে গেলাম।
ঠক্* ঠক্*-
চমকে তাকিয়ে দেখি আমার দরজায় আমার এক বন্ধু মনিময়। সে আমার ওই অবস্থা দেখে অনেক আগেই দেখে নিয়েছে এবং নিজেও সাগরের স্নান উপোভোগ করছিল। আমি পড়ি কি মরি করে জানালা টা বন্ধ করে দিলাম। ভীষন আফশোষ হছিল। মনি চিত্*কার করে আমায় অভিযোগ করতে লাগলো ওই দৃশ্য দেখার জন্য। কিন্তু আমি যেহেতু ভাল ছেলে ছিলাম তাই বদনাম এর ভয়ে ওকে বুঝিয়ে নিরস্ত্র করলাম। (ক্রমশ)

No comments

Powered by Blogger.